সহকারী প্রাথমিক শিক্ষক নাহিদ হাসানের অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন প্রক্রিয়াধীন

সহকারী প্রাথমিক শিক্ষক নাহিদ হাসানের অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন প্রক্রিয়াধীন

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রামের চিলমারী চর শাখাহাতি ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ নাহিদ হাসানের বিরুদ্ধে গত ১৭সেপ্টেম্বর ২০১৯ইং তারিখে কালের কথা পত্রিকাসহ বিভিন্ন পত্রিকায় ‘চিলমারীতে অনিয়মকে নিয়ম বানাচ্ছেন প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নাহিদ হাসান’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়।উক্ত সংবাদ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ্ মোঃ শামসুজ্জোহা এর দৃষ্টিগোচর হয়।

সংবাদে উল্লেখ্য যে,গত ১৭/০৪/২০১৯ খ্রি. সহকারী শিক্ষক মোঃ নাহিদ হাসান বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন মর্মে প্রধান শিক্ষকের প্রতিবেদন হতে জানা যায়।কিন্তু মাসিক বিবরণী যাচাইকালে দেখা যায় তিনি ঐ একই তারিখের জায়গায় অনুপস্থিত লেখার উপর দিয়ে উপস্থিতির স্বাক্ষর করেছেন। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের প্রতিবেদন অনুযায়ী সহকারী শিক্ষক নাহিদ হাসান গত ২৭/০৪/২০১৯ খ্রি. হতে ২৯/০৪/২০১৯ খ্রি. পর্যন্ত নৈমিত্তিক ছুটি গ্রহন করেন কিন্তু পরবর্তীতে নৈমিত্তিক ছুটি লেখার উপর দিয়ে ওই সহকারী শিক্ষক উপস্থিত স্বাক্ষর করেন।এছাড়াও গত এপ্রিল-মে/২০১৯ মাসের মাসিক বিবরণী থেকে জানা যায় সহকারী শিক্ষক নাহিদ হাসান ১১/০৪/২০১৯ খ্রি. তারিখে নৈমিত্তিক ছুটিতে ছিলেন। পরবর্তীতে ১২/০৪/২০১৯ থেকে ১৪/০৪/২০১৯ . তারিখ পর্যন্ত বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে ০৩দিন বিদ্যালয় বন্ধ থাকার পরবর্তী দিন ১৫/০৪/২০১৯ খ্রি. পুনরায় ওই সহকারী শিক্ষকের স্বাক্ষরের স্থানে নৈমিত্তিক ছুটি লেখা দেখা যায়।কিন্তু নৈমিত্তিক ছুটির বিধানে নৈমিত্তিক ছুটি উভয় দিকে সরকারি ছুটির সহিত যুক্ত করা যাবে না।

গত ১৭সেপ্টেম্বর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ তদন্তসাপেক্ষে উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনপূর্বক ২৩সেপ্টেম্বর ২০১৯ইং তারিখের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলেন।এবং জেলা প্রশাসক, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ও চিলমারী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বরাবরে অনুলিপি প্রদান করেন। যার পত্রের স্মারক নং-০৫.৪৭.৪৯০৯.০০০.০৭.০৩৬.১৯-৮৯০

গত ২৪/০৯/২০১৯ইং তারিখে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে সহকারী শিক্ষক নাহিদ হাসানের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগের তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ আবু ছালেহ সরকার।যার স্মারক নং-উশিঅ/চিল/কুড়ি/৫০০

উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়,অফিস স্মারক নং- ০৫.৪৭.৪৯০৯.০০০.০৭.০৩৬.১৯-৮৯০ তারিখঃ ১৭সেপ্টেম্বর, ২০১৯খ্রি. উপযুক্ত বিষয় ও সূত্রস্থ স্মারকে আদিষ্ট হয়ে গত ২২/০৯/২০১৯ খ্রি. তারিখ বিদ্যালয়টি(চর শাখাহাতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়) পরিদর্শন করা হয়।হাজিরা খাতা যাচাই করে দেখা যায় উক্ত সহকারী শিক্ষক মোঃ নাহিদ হাসান এর বিরুদ্ধে সুত্রস্থ স্মারকের দফা-১ হতে ৪দফা পর্যন্ত পত্রিকায় যে অভিযোগ প্রকাশিত হয়েছে তা পুরোপুরি সত্য।এরুপ অনিয়মের কারণে ইতোপূর্বে সংশ্লিষ্ট ক্লাস্টারের সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ শাখাওয়াৎ হোসেন ভূতপূর্ব উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নিমিত্তে রিপোর্ট করলে অত্র দপ্তরের স্মারক নং-উশিঅ/চিল/কুড়ি/৩৬৩ তারিখ ১১/০৬/২০১৯খ্রি. মোতাবেক কৈফিয়ত তলব করা হলে কোনরুপ জবাব দাখিল না করায় পরবর্তীতে উশিঅ/চিল/কুড়ি/৩৮৬ তারিখ ০৪/০৭/২০১৯ খ্রি. মূলে পুনরায় ২য় কারণ দর্শানো নোটিশ প্রদান করলে উক্ত সহকারী শিক্ষক জবাব দাখিল করেন।কিন্তু পরবর্তীতে বিষয়টি সুরাহা হয়নি।বিশেষভাবে উল্লেখ্য যে সূত্রস্থ স্মারকে বর্ণিত অনিয়ম ছাড়াও গত ফেব্রয়ারি /২০১৯ হতে হাজিরা খাতা যাচাই করে গত ০৪/০২/২০১৯খ্রি. ২৬/০২/২০১৯খ্রি. ২৩/০৩/২০১৯খ্রি. ২৬/০৬/২০১৯খ্রি. হতে ২৯/০৬/২০১৯খ্রি. ০৮/০৭/২০১৯খ্রি. ০৩/০৮/২০১৯খ্রি. তারিখ হতে মোট ৯দিন বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত পাওয়া যায়।তাছাড়াও উক্ত সহকারী শিক্ষক মোঃ নাহিদ হাসানের নৈমিত্তিক ছুটি গ্রহন করার প্রবনতা বেশী লক্ষ্য করা যায়।

রোববার(২৯ সেপ্টেম্বর) উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ্ মোঃ শামসুজ্জোহা জানান, সহকারী শিক্ষক মোঃ নাহিদ হাসানের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগের তদন্ত প্রতিবেদন পেয়েছি।তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এ ব্যাপারে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ শহিদুল ইসলাম জানান,লিখিত অভিযোগ পেলে সহকারী শিক্ষক নাহিদ হাসানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Categories: অপরাধ ফলোআপ,রংপুর

Tags: