সুবর্ণচরে অতিরিক্ত টোল আদায়ের অভিযোগে কৃষকদের মানববন্ধন

সুবর্ণচরে অতিরিক্ত টোল আদায়ের অভিযোগে কৃষকদের মানববন্ধন

নোয়াখালী (সুবর্ণচর) প্রতিনিধিঃ নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার ৮নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের চর আলা উদ্দিন গ্রামের মোস্তফা বাজার (মোস্তান নগর)সংলগ্ন শসা ও সবজি চাষী কৃষকগণ অতিরিক্ত টোল আদায়ের অভিযোগে মানববন্ধন করেছে ।
মানববন্ধনে কৃষক সংগঠনের সভাপতি ইব্রাহিম খলিল বলেন, স্থানীয় বাসিন্দা বেলাল, সাহাব উদ্দিন, ইছমাইল ও সেলিম ১৪২৬ বাংলা সনের জন্য উক্ত বাজার উপজেলা পরিষদ থেকে এক বৎসরের জন্য ইজারা গ্রহণ করেছে মর্মে আমরা জানতে পারি। কিন্তু তারা বাজারে টোল আদায়ের ক্ষেত্রে কোন প্রকার মূল্য তালিকা প্রদর্শন না করে নিয়োমিত ভাবে অতিরিক্ত টোল আদায় করে আসছে। এমনকি বাজারের আড়ৎদার এর কাছে সবজি বিক্রি করলেও তাদেরকে প্রতি হাজারে ৫০ টাকা করে টোল দিতে হচ্ছে। যা বাংলাদেশের অন্য কোন বাজারে আমরা দেখিনি। আমি এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
প্রান্তিক কৃষকদের অভিযোগ, অনেক কষ্ট করে সবজি উৎপাদন করে বাজারের আড়ৎ এর মাধ্যমে বিক্রি করি কিন্তু ইজারাদারগণ আড়ৎদার এর মাধ্যমে আমাদের থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এতে সবজি চাষে আমরা আগ্রহ হারাচ্ছি।স্থানীয়রা জানান, উৎপাদিত সবজি বাজারে বিক্রি করতে গেলে বাজার ইজারাদার এর অতিরিক্ত টোল আদায়কে কেন্দ্র করে প্রতিনিয়ত কৃষক ও ইজারাদারদের মধ্যে বাক-বিতন্ডা হয়। এব্যাপারে কৃষকগণ নোয়াখালী-৪ সদর-সুবর্ণচর এর সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী এর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাজার ইজারাদারগণ অতিরিক্ত টোল আদায়ের বিষয়টি এড়িয়ে যান এবং বলেন আমরা নিয়ম অনুযায়ী টোল নিচ্ছি।
উল্লেখ্য যে, নোয়াখালীর সর্ববৃহৎ সবজি উৎপাদন এলাকা ক্ষ্যাত মোস্তফা নগর থেকে প্রতিদিন ৫০০ মন শসা ও অন্যান্য সবজি বাজারজাত করে আসছে কৃষকরা।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসমে সুবর্ণচর উপজেলায় ১২০০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন প্রজাতির সবজি চাষ করে কৃষকগণ। এর মধ্যে শসা ৫০০ হেক্টর, বরবটি ৪০০ হেক্টর, করলা ১০০ হেক্টর, চিচিংগা ৫০ হেক্টর, ঝিঙ্গা ৪০ হেক্টর , ঢেড়স ৩০ হেক্টর, বেগুন ৩০ হেক্টর, লাউ ৫০ হেক্টর জমিতে চাষাবাদ করেন। এলাকার চাহিদা মিটিয়ে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে উক্ত সবজি রপ্তানি করা হয়।
সুবর্ণচর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুহাম্মদ শহীদুল ইসলাম জানান, অতিরিক্ত টোলের বিষয়ে আমার জানা নেই তবে আমি ঐ ইউনিয়নের মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তার মাধ্যমে খবর নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে আলাপ করে অতিরিক্ত টোল গ্রহণ বন্ধ করার ব্যবস্থা নিব।

Categories: চট্টগ্রাম

Tags: