সাতক্ষীরা আশাশুনিতে সুষ্মিতার ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় থানায় মামলাদায়ের ॥ ধর্ষক জয়প্রকাশ গ্রেফতার

সাতক্ষীরা আশাশুনিতে সুষ্মিতার ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায়
থানায় মামলাদায়ের ॥ ধর্ষক জয়প্রকাশ গ্রেফতার

সাতক্ষীরা প্র‌তি‌নি‌ধি : আশাশুনিতে ৩য় শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় ধর্ষক জয়প্রকাশকে আটক করেছে থানা পুলিশ। সুষ্মিতার মাতা বাদী হয়ে জয় প্রকাশ সরকার এর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা রুজু করেছে। ধর্ষকের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ভিকডিমের জুতা, জামা-কাপড় উদ্ধার ও ধর্ষণ ও হত্যার কথা স্বীকার। ধর্ষক গাবতলা গ্রামের নির্মল সরকারের পুত্র বুধহাটা বি.বি.এম কলেজিয়েট স্কুলের একাদশ শ্রেণির ছাত্র জয় প্রকাশ সরকার (১৭) কে গ্রেফতার করেছে আশাশুনি থানা পুলিশ।ঘটনাটি ঘটেছে, রবিবার সন্ধ্যা আনুমানিক ৮টার দিকে উপজেলার কুল্যা ইউনিয়নের গাবতলা গ্রামে। সুষ্মিতার পরিবার সূত্রে জানাগেছে, গাবতলা গ্রামের প্রশান্ত দাশের কন্যা গাবতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য়
শ্রেণির ছাত্রী সুষ্মিতা দাশ (৮) প্রতিবেশি জয় প্রকাশ সরকারের বাড়ীতে তার ছোট বোনকে নিয়ে প্রাইভেট পড়তে যায়। রাত ৮ টার দিকে ছোট বোন সুমা প্রাইভেট
পড়ে ফেরে আসলেও বোন সুষ্মিতা বাড়ী ফিরে না আসায় পরিবারের লোকজন তাকে খোজাখুজি শুরু করে। খোজাখুজির এক পর্যায়ে রাত ৯ টার দিকে পুকুরের জাল
ফেলার সিদ্ধান্ত নেয়। এর আগে ধর্ষক জয় প্রকাশ সুষ্মিতাকে ধর্ষণ করার পর বাড়ীর পাশে পুকুর ফেলে দেয়। পুকুরে জাল ফেলার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরেই ধর্ষক জয় প্রকাশ সরকার সবার অজান্তে পুকুর থেকে সুষ্মিতার লাশ তুলে বাড়ীর পিছনের টয়লেটের সেফটি ট্যাংকের ভিতরে ফেলে রাখে। পুকুর থেকে সেফটি ট্যাংকের ভিতরে রাখার সময় ধর্ষকের পায়ের চিহ্ন অনুসারণ করে ট্যাংকের
ঢাকনা তুললে সুষ্মিতার লাশের দেখা মেয়ে। পরে আশাশুনি থানা পুলিশকে খবর দিলে রাত ১ টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে টয়লেটের সেফটি ট্যাংকের ভিতর
হতে সুষ্মিতার মৃতদেহ উদ্ধার করে। জয় প্রকাশ সরকারকে সাথে নিয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তার নিজ বাড়ীর কাঠঘরে লুকানো ভিকটিম সুস্মিতার গায়ে থাকা জামা, জ্যাকেট ও স্যান্ডেল উদ্ধার করেন। এই সংক্রান্তে জয়
প্রকাশ সরকারকে সন্দেহ হওয়ায় তাহাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসার পর জিজ্ঞাসাবাদে সে স্বীকার কারে যে, রবিবার সে তার নিজের বাড়ীর পিছনে
সুস্মিতাকে ধর্ষণ করে মৃত্যু ঘটানের পর পার্শ্ববর্তী পুকুরে তার লাশ ফেলে দেয় এবং কিছুক্ষণ পরে পুকুরের পার্শ্বে টয়লেটের সেফটিক ট্যাংক এর মধ্যে সুস্মিতার লাশ লুকিয়ে ফেলে। সুস্মিতার লাশটি ময়না তদন্তের জন্য সাতক্ষীরা
সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হইয়াছে। আশাশুনি থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আজিজুর রহমান জানান, সুষ্মিতার লাশের ময়না তদন্তের জন্য সোমবার সকালে সাতক্ষীরা সদয় হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ধর্ষক জয় প্রকাশ সরকার ধর্ষণ ও হত্যার কথা স্বীকার করায় থাকে আদালতের মাধ্যমে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি করানো হবে।

Categories: অপরাধ ফলোআপ,খুলনা,প্রধান নিউজ

Tags: