নতুন চ্যালেঞ্জে ব্যবসায়ীরা, পুনর্বিবেচনার আহবান

Gas_Electricity_SM_191308399নিজস্ব প্রতিবেদক : বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বাড়ানোর কারণে দেশের শিল্প ও বাণিজ্য খাত নতুন করে হুমকির মুখে পড়বে। এর ফলে বেড়ে যাবে পণ্যমূল্যের দাম। অন্যদিকে আন্তর্জাতিক বাজারে হারাবে প্রতিযোগিতার সক্ষমতাও।

শুক্রবার এফবিসিসিআই, বিজিএমইএ ও ইএবির নেতাদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

সংগঠনগুলোর নেতাদের অভিযোগ, ধাপে ধাপে সারাবিশ্বে জ্বালানির দাম কমছে, অথচ বাংলাদেশে বাড়ানো হচ্ছে। এতে ব্যবসায়ীরা মারাত্মক হুমকির মুখে পড়বে। আর এর প্রভাব পড়বে দেশের অর্থনীতিতেও। তাই এটি আবারও পুনর্বিবেচনা করা উচিত।

গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) গ্যাসের দাম গড়ে ২৬ দশমিক ২৯ শতাংশ এবং বিদ্যুতের দাম গড়ে ২ দশমিক ৯৩ শতাংশ বাড়ানোর ঘোষণা দেয়। যা আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হবে।  এই সিদ্ধান্ত ঘোষণার পর নতুন করে বাড়তি খরচের আতঙ্কে ভুগছেন ব্যবসায়ীরা।

এ বিষয়ে বিজিএমইএর সহ-সভাপতি শহিদুল্লাহ আজিম বলেন, এমনিতেই পোশাক খাতের উৎপাদন খরচ আগের তুলনায় অনেক বেড়েছে। এখন গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ায় উৎপাদন খরচ আরো বেড়ে যাবে। ফলে পণ্যের দাম বাড়াতে হবে। আর এতে দেশের রফতানির বড় খাত পোশাক শিল্পেও আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতার সক্ষমতা হারাবে।

তিনি আরও বলেন, কারখানায় উৎপাদন চলমান রাখতে বিকল্প জ্বালানিতে জেনারেটর চালাতে হয়। কিন্তু সরকার তেলের দাম কমাচ্ছে না। বরং বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম বাড়িয়ে উৎপাদনকারীদের হুমকির মুখে ঠেলে দিল।

সরকার ব্যবসায়ীদের দাবিকে মূল্যায়ণ করেনি অভিযোগ করে তিনি বলেন, ব্যবসায়ীরা গণশুনানিতে বলেছিলেন, দাম বাড়ালে তা যেন সহনীয় পর্যায়ে হয়। কিন্তু ব্যবসায়ীদের এ দাবি বিবেচনা করা হয়নি। আশা করবো সরকার বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করবে।

রফতানিকারকদের সংগঠন ইএবির সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদী বলেন, বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম এমন একটা সময় বাড়নো হয়েছে, যখন রফতানিখাতে ১২ শতাংশ ঋণাত্বক প্রবৃদ্ধি। এছাড়া বছরের শুরুতে রাজনৈতিক অস্থিরতায় ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সে ক্ষতি কাটিয়ে না উঠতেই নতুন করে চাপ তৈরি হল।

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমলেও দেশের বাজারে দাম রিভিউ করা হয়নি। আন্তর্জাতিক বাজার প্রেক্ষাপটে গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ানো অযৌক্তিক। এতে রফতানিখাত হুমকির মুখে পড়বে। বিশষ করে প্রতিযোগিতার বাজারে পোশাক খাতের অংশীদারিত্বও কমে যাবে।

এফবিসিসিআইর সহসভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ব্যবসায়ীরা দেশের অর্থনীতির চালিকাশক্তি। তাদের টিকিয়ে রাখতে গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ানো উচিত নয়। এতে ব্যবসায়ীদের খরচ বেড়ে যাবে। ফলে ভোক্তা পর্যায়ে এর প্রভাব পড়বে। এটা পুনর্বিবেচনা করা দরকার।

Categories: জাতীয়,প্রবাসের খবর